EAST BENGAL the Real POWER -The Official Website
EAST BENGAL the Real POWER Fans

আজ লাল-হলুদ অন্তপ্রান দের প্রশ্ন-"এ কোন ইষ্ট বেঙ্গল"

এটা কোন ইষ্ট বেঙ্গল! ঝিমিয়ে পড়া; আত্মবিশ্বাসের অভাব; মিস পাসের ছড়াছড়ি....হ্যাঁ! দুর্ভাগ্যক্রমে, পিছিয়ে পরা ইষ্ট বেঙ্গল কে আজ পুরো বিপরীত লাগল। যেই ইষ্ট বেঙ্গল খোঁচা খাওয়া বাঘের মতোন বিপক্ষের উপর ঝাঁপিয়ে পড়ে, সেই লাল-হলুদ জার্সি গুলোকে আজ বড্ড অসহায় লাগছিলো, ঠিক যেন মরুভূমিতে পথ হারিয়ে ফেলা কোনও যাত্রী! খারাপ খেলা, ভালো খেলা, সবই খেলার অঙ্গ। কিন্তু তাই বলে এভাবে ছন্নছাড়া ফুটবল? জনির গোল টাও সাদা-কালো গোল রক্ষক, অরুপ দেবনাথের ভুলে। সত্যি বলতে, গোটা ম্যাচে ইষ্ট বেঙ্গলের নিজস্ব বলতে কিছুই ছিল না। উপরন্তু, মহামেডানের ফুটবলাররা যদি একাধিক সহজ সুযোগ মিস না করতেন, তাহলে হয়তো হাফ-ডজন গোলে হারতে হতো সুভাষের দল কে।


খেলার শুরুর থেকেই জবি জাস্টিনের শরীরী ভাষা দেখে মনে হচ্ছিল, পার্কে জগিং করতে এসেছেন। সঙ্গে ক্যাপ্টেন আর্মব্যান্ড পড়া সামাদ আর জনির পাশে মেহতাব সিংহ কে দেখেও মনে হচ্ছিল ছোট দলের জার্সি গায়ে নেমেছেন, বড্ড সাধারন। দু-একটা ক্লিয়ারেন্স বাদে আর কিছুই করেনি ৯০ মিনিটে। বরং, ওই দু-জনের ভুলেই শেষের দিকে গোল করে যায় মহামেডানের ২০ বছর বয়সের স্ট্রাইকার টি। প্রথম গোলটা ডানমাওইয়ার জঘন্য ব্যাক পাসে। জনি সেটা পা-বাঁচিয়ে না খেললে, আই-লীগে ওকে পাওয়া যেতো কি না, সন্দেহ! বিশ্বকাপার নিজের ডিউটি ভালো করেই পালন করে গেছে। দু-টো বড়ো ম্যাচেই গোল করেছে। কিন্তু ওর পাশে সবাইকে পাড়ার মাঠের ছেলে মনে হয়েছে, যারা বলে লাথি মারা বাদে কিছুই পারে না! প্রশ্ন নয়, এবার রোশে ফেটে পড়া উচিৎ, জর্জ ম্যাচের সেরা খেলোয়ার- কৌশিক সরকারকে কেন নামানো হচ্ছে না? আজ তো ১৮ জনের দলেই রাখা হয়নি তাকে। এটা কী সুভাষ-বাস্তব-রঞ্জন দের দোষ, নাকি পিছনে কারোর হাত আছে? কেন পিয়ারলেস ম্যাচে হারের পরেও সঞ্চায়ন ব্রাত্য? কেন দুই স্ট্রাইকার নয়? কমলপ্রীত কে আর কতো দিন নিজের জায়গা থেকে বঞ্চিত হতে হবে? অবাক হওয়ার আরেকটা ব্যাপার, প্রথম থেকে ভালো খেলা ইয়ামি লংগাভ জায়গায় কেন সুরাবুদ্দিন! প্রশ্ন অনেক, তবে তার উত্তর নেই কারোর কাছেই স্প্যানিশ কোচ ভারতে আসার পর থেকে দলের জয়ের স্বাদ পাননি, এটা বাঙালী মস্তিষ্ক দের কাছে বড়ো লজ্জার!

সব কিছুর পরে স্বস্তি একটাই, কোলকাতা লীগের আর একটা ম্যাচ বাকি। তারপরই হয়তো একগুঁয়ে সুভাষের জামানা শেষ! তখন হয়তো কৌশিক-সঞ্চায়ন দের প্রতিভার যোগ্য কদর করবেন কেউ। তখন হয়তো সবুজ ঘাসে লাল-হলুদ জার্সি গোলাপ হয়ে ফুটবে।

Related Articles

More Articles

Latest News

More News
Club News Posted on November 01, 2018

লক্ষীবারে পাহাড়ে শিলং বধ করলো ইস্টবেঙ্গল.

খেলার শুরু থেকেই মনে হচ্ছিলো, এ যেন ব...