EAST BENGAL the Real POWER -The Official Website
EAST BENGAL the Real POWER Fans

লক্ষীবারে পাহাড়ে শিলং বধ করলো ইস্টবেঙ্গল.

খেলার শুরু থেকেই মনে হচ্ছিলো, এ যেন বারাসাতের টার্ফে নামছে দল। পরিষ্কার "ইষ্ট বেঙ্গল...ইষ্ট বেঙ্গল!" শোনা যাচ্ছিলো টিভিতে। তবে খেলার শুরুতে স্যামুয়েলের শট টা পোস্টে লাগতেই বুক কেঁপে উঠেছিলো ভয়ে-"এইবারও কি তাহলে..." কিন্তু না! ১২ মিনিটের মাথায় ডিডিকার সেট-পিসে মাথা ছুঁইয়ে প্রথম ধাক্কা টা দিলো জবি জাস্টিন। কোলকাতা লীগে মাত্র ৩ গোল করা কেরালিয়ান ফুটবলার আই-লীগের গোড়া তেই জোড়া গোল করে লাল-হলুদ কে এগিয়ে দেয় ৪১ মিনিটের মাথায়। লাজং বক্সে জবি-এনরিকের দুরন্ত তালমিলে ২-০ করে যায় ইষ্ট বেঙ্গল।

অদম্য লাজং তখনোও হাল ছাঁড়তে নারাজ। পরের পর আক্রমন করে যাচ্ছে তারাও। তবে, অধিনায়ক স্যামুয়েল আর রাকেশ বাদে আক্রমনে আর তেমন কেউ দাঁত ফোটাতে পারেনি জনি-বোরহা দের দুরন্ত ডিফেন্সের সামনে। চুলোভা ও এদিন বেশ ভালো কিছু ব্লকিং আর ক্লিয়ার করে। দেখে মনে হচ্ছিলো, রক্ষন নিয়ে অনেক মেহনত করেছেন স্প্যানিশ কোচ। কিন্তু, একটু ছোট্ট ভুলের সুযোগ নিয়ে হেডে গোল করে যায় লাজং-এর রাকেশ প্রধান। দ্বিতীয়ার্ধের মাঝের দিকে চোট পেয়ে মাঠ ছাঁড়ে ব্রেন্ডন, তার জায়গায় আসে গতো ম্যাচে শুরু করা ইয়ামি লংভা। অন্যদিকে, লীগে সুযোগ পেয়ে তার মর্জাদা রেখে গোল করে যায় জবির পরিবর্তে নামা সুভাসের দলে খেই হারিয়ে ফেলা তরুন তুর্কি বিদ্যাসাগর সিংহ। পিছন থেকে দৌঁড় দিয়ে বল নিয়ে গোলকিপারের বাম দিক দিয়ে বল জালে জড়িয়ে দেয় সমর্থক দের আদরের 'বিদ্যা'। সব ঠিকঠাক চলেলও, দুটো জায়গা একটু চোখে লাগছে বেশ করে। প্রথমটা হলো, কর্নারের সময় ম্যান মার্কিং টা ঠিক ভাবে হচ্ছে না; যার জন্য রাকেশ হেডে গোল করে গেল। পরেরটা, মাঝমাঠে খেলা ধরার মতো কেউ নেই। ডিডিকা প্রচুর লোড নিলেও, প্লে-মেকারের জায়গা টা ফাঁকা। আমনা এলে হয়তো সেই সমস্যা মিটে যাবে। তবে, চার ডিফেন্সের সামনে কমলপ্রীত বেশ বেমানান। তার সত্বেও দু-়ম্যাচে ৫ গোল করেছে অ্যালেজান্দ্রো-ব্রিগেড!

সময়ের চাকা ঘুরিয়ে পাহার থেকে ৬ পয়েন্ট নিয়ে ফিরছে দল। সমর্থকরা স্বভাবতই বেশ উদ্বেলিত হবেন। তবে সেলিব্রেশনের সময় এখন নয়, দিল্লি এখনোও অনেক দূর!

Related Articles

More Articles

Latest News

More News
Club News Posted on October 26, 2018

পাহাড় জয় স্বপ্ন লাল-হলুদের.

"ধুর! সব শেষ..." হ্যাঁ, ঠিক এট...